ফাইভার গিগ মার্কেটিং এবং অর্ডার পাওয়া নিয়ে কিছু কথা ও আইডিয়া জেনে নিন



ফাইভার গিগ মার্কেটিং এবং অর্ডার পাওয়া নিয়ে কিছু কথা ও আইডিয়া জেনে নিন ।

আমরা যারা অনেকদিন ফাইভারে কোনো কাজ পাইনা, তাদের মনের মধ্যে একটা কথা অবস্যই আসে, তা হলো গিগ মার্কেটিং! 😐 অনেকেই আছে যারা তাদের অর্ডার না পাওয়ার মূল কারণ এটাই ভাবেন যে - তারা গিগ মার্কেটিং করতে পারেনা। যাদের মনে এই ভাবনা আছে, আশা করি আজকে থেকে তা আর থাকবেনা।
---
আমি বর্তমানে লেভেল টু সেলার, বর্তমানে আমার ৩টা গিগ তাদের ক্যাটাগরি এর ফার্স্ট পেইজে আছে। কিন্তু! মজার বেপার হলো আমি জীবনেও কখনোই গিগ মার্কেটিং করিনি। 😱😁
---
তাহলে কি গিগ মার্কেটিং এর কোনো প্রয়োজন নেই? অবস্যই আছে, কিন্তু এটি করা আবশ্যক নয়।
***তাহলে আবশ্যক কি?***
আবশ্যক হলো, আপনার গিগের প্রেসেন্টেশন এবং আপনার কাজের কোয়ালিটি। আপনার গিগের প্রেসেন্টেশন যদি ভালো হয়, ফাইবার নিজেই আপনার মার্কেটিং করবে, আপনার কিচ্ছু করতে হবেনা, তবে অবস্যই যেসব অর্ডার পাবেন, সেগুলো কোয়ালিটি সম্পন্ন কাজের মাধ্যমে যথাযথ ভাবে পূরণ করতে হবে, দেখবেন অর্ডারের কোনো অভাব হবেনা। ☺️
---
||| অধিক কাজ পাওয়ার জন্য কিছু সাজেশন নিন্মে দিলাম |||
যারা কাজ পাচ্ছেন না, আপনারা গিগ মার্কেটিং করলে কাজ পাবেন এই কথা প্রথমেই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন, তারপর নিজের প্রোফাইলে যান, আপনার গিগ ওপেন করুন।
এবার আপনার ক্যাটেগরিতে যেসব গিগ ফার্স্ট পেইজে আছে, সেখান থেকে ১০-১৫টি গিগ ওপেন করুন, তারপর আপনার গিগের সাথে ঐসব গিগের কম্পেয়ার করুন।
এরপর নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করবেন,
"আমার গিগ কি এসবের সাথে দাঁড়ানোর যোগ্যতা রাখে?" 😕
যদি দেখেন আপনার গিগের সাথে ঐসব গিগের কোয়ালিটির সদৃশতা নেয়, তাহলে নিচের বিষয়গুলো মাথায় রেখে গিগ আপডেট অথবা নতুন করে গিগ ক্রিয়েট করুন :
১) কম্পেটিটরদের গিগগুলো রিসার্চ করেন, আইডিয়া নেন, নিজের সৃজনশীলতা এবং অন্য গিগের থেকে পাওয়া Inspiration কে ব্যবহার করে ট্রেনডি গিগ ইমেজ ক্রিয়েট করুন।
২) অন্যান্য সেলার কিভাবে ডিস্ক্রিপশন লিখছে তা দেখুন, সুন্দর করে গুছিয়ে মূলকথাগুলো লিখবেন এবং গিগ ডেস্ক্রিপশনের ক্ষেত্রে রিডেবিলিটি মেনটেইন করুন, বোল্ড/মার্কআপ ইত্যাদির মাধ্যমে সুন্দর করে লিখুন।
৩) কীওয়ার্ড রিসার্চ করুন, কীওয়ার্ডস যথাযত ভাবে টাইটেল, ট্যাগ্স এবং ডেস্ক্রিপশনে ব্যবহার করুন।
বি. দ্রঃ আগের ক্রিয়েট করা গিগ হলে টাইটেল এবং ট্যাগ্স পরিবর্তন থেকে বিরত থাকবেন।
৪) আপনার কম্পেটিটর'রা কতদিনের ডেলিভারি এবং কত বাজেটে কাজ করছে দেখুন, সেই অনুযায়ী এবং নিজের স্কিল+এক্সপেরিয়েন্স অনুযায়ী সব সেট করুন।
৫) গিগ ইমেজ, ডেসক্রিপশন, ইত্যাদি সবকিছু অবস্যই সময় নিয়ে বানাবেন, যে গিগ থেকে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করার চিন্তা করছেন, সেটা তৈরিতে পর্যাপ্ত টাইম দেয়া কিন্তু আবশ্যক।
৬) সব ধরণের কপি-পেস্ট থেকে বিরত থাকুন. চুরি করে চোর হওয়া যায়, ফ্রীলান্সার না।
-এসব বিষয় ঠিক মতো ফলো করে গিগ ক্রিয়েট করলে, অবস্যই অর্ডার পাবেন। ফাইবার সবাইকেই সুযোগ দেয়, তবে তা ভোগ করার যোগ্যতা অবস্যই আমাদের প্রোফাইলে থাকতে হবে। 😇
গিগ সুন্দর করে প্রেসেন্টেশন করার পরে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় হলো, বায়ার রিকোয়েস্ট। আপনি যদি নতুন হন, আপনার কাজ পাওয়ার জন্য বায়ার রিকোয়েস্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
সর্বশেষ হলো গিগ মার্কেটিং।
গিগ মার্কেটিং অবস্যই অনেক উপকারী যদি তা সঠিকভাবে করা হয়, কিন্তু আপনি যদি নতুন হন, তাহলে এটি থেকে সম্পূর্ণ দূরে থাকুন। কারণ নতুন অবস্থায় আপনারা "মার্কেটিং" করার পরিবর্তে না বুঝেই "স্প্যামিং" করে ফেলেন। যার ফলে, কোনো লাভ হওয়া দূরের কথা, উল্টো আপনার সময় ও শ্রম নষ্ট হয়, এবং মার্কেটিং করেও কোনো রেজাল্ট না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন। 😥
তাই, গিগ মার্কেটিং এর মধ্যে মনোযোগ না দিয়ে, নিজের গিগের কোয়ালিটিতে মনোযোগ দিন। কারণ আপনার গিগের প্রেসেন্টেশন যদি ভালো না হয়, তাহলে সেখানে মার্কেটিং এর মাধ্যমে ১লক্ষ ক্লায়েন্ট ভিসিট করলেও, গিগের কোয়ালিটি দেখে ৫সেকেন্ডের মধ্যে উইন্ডোটি ক্লোস করে দিবে। 😝
তাই কোয়ালিটি বজায় রেখে গিগ সাজিয়ে কাজ করুন, প্রফেশনাল বায়ার রিকোয়েস্ট পাঠান নিয়মিত, অর্ডার পেলে অবস্যই ক্লায়েন্ট যেন ১০০% সন্তুষ্ট হয় - তা নিশ্চিত করুন, দেখবেন ফাইবার নিজেই যেন আপনার মার্কেটিং করে দিচ্ছে!
সর্বশেষ একটি কথা বলি,
যথাযথ ভাবে গিগ ক্রিয়েট না করে মার্কেটিং করার বিষয়টি হলো,
একটি গাছে যথযথ পানি না দিয়েই সার দেওয়ার মতো। 😂
আপনার ক্যাটাগরি নিয়ে নিয়মিত রিসার্চ করুন, নিয়মিত বায়ার রিকোয়েস্ট পাঠান, এবং অর্ডার না পেলে হতাশ হয়ে বসে থাকবেন না - নিজের স্কিল ডেভেলপমেন্টের দিকেও মনযোগ দিন। আপনি স্কীলড হলে কেবল ফাইভার নিয়ে না থেকে এর সাথে সাথে অন্যান্য মার্কেটপ্লেসের মধ্যেও চেষ্টা চালিয়ে যান, সফলতা আসবেই।
#Happy_Freelancing! ☺️❤️
আরো নতুন কিছু পেতে সাথেই থাকুন।

Post a Comment

0 Comments