কি কারণে এ্যাডসেন্স ব্যান্ড হয়ে যায় তার কারণ সমূহ দেখুন

See the reasons why AdSense becomes a band 
কি কারণে এ্যাডসেন্স ব্যান্ড হয়ে যায় তার কারণ সমূহ দেখুন 

১. গুগল অত্যন্ত শক্তিশালী একটি ওয়েব এ্যাপলিকেশন। আপনার প্রত্যেকটি কাজকে লক্ষ্য করা হয়ে থাকে খুবই সূক্ষ্ম দৃষ্টি থেকে। এখানে আপনি যদি মনে করেন যে গুগলের চোখ ফাঁকি দিয়ে আপনি টাকা কামাবেন অর্থাৎ নিজে নিজে এ্যাডে ক্লিক করবেন আর ব্যালেন্সে যোগ হবে ডলার তবে এটি হবে আপনার সবচেয়ে বড় বোকামি। তাই সাবধান, নিজের এ্যাডে নিজে কখনই ক্লিক করবেন না।
 
২. গুগলের গাইডলাইন অনুযায়ী কাউকে এ্যাডে ক্লিক করার জন্য অনুপ্রানিত করা যাবে না। হয়তোবা মনে করতে পারেন এ সাইটে লিখলে গুগল বুঝতে পারবে না কিন্তু আপনার জানা থাকা দরকার যে, প্রায় প্রত্যেকটি সাইটই গুগলের কাছে পরিচিত।
 
৩. গুগল থেকে প্রাপ্ত এ্যাডের যে কোড, সে কোড পরিবর্তন করে নিজের মত একটা ডিজাইন তৈরি করাও নিরাপদ নয়। এটিও হতে পারে এ্যাডসেন্স বাতিল হওয়ার অন্যতম একটি কারন।
 
৪. ছবির পাশে অনেকেই এ্যাড ব্যবহার করে থাকেন, যা গুগলের নির্দেশনা মোতাবেক অবৈধ। তাই কোন ছবির পাশে গুগলের এ্যাড ব্যবহার করবেন না।
 
৫. এখানে ক্লিক করুন, ভিজিট করুন, প্রিয়তে রাখুন ইত্যাদি লেখার পাশে গুগলের এ্যাড ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
 
৬. কপি-পেষ্ট, পর্নো কিংবা অন্যান্য যেকোন খারাপ বিষয়যুক্ত আর্টিকেলের ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
 
৭. এ্যাডসেন্স একাউন্ট খোলা রেখে আপনার এ্যাডসেন্স এ্যাড ব্যবহৃত সাইট ওপেন করবেন না।
 
৮. আর যারা এসইও জানেন তাদের জন্য বলছি, ভিজিটর বৃদ্ধির জন্য এসইও করা ভাল কিন্তু রাতারাতি লাভের আশায় ব্লাক এসইও থেকে বিরত থাকুন।
 
৯. Page CTR সর্বদা নিয়ন্ত্রনে রাখুন। Page CTR স্বাভাবিক হচ্ছে ২ থেকে ৫ এর মধ্যে। ৫ এর উপরে গেলে কিছুটা ঝুকিপূর্ণ। Page CTR ১০ এর উপরে গেলে সম্পূর্ণ ঝুকিপূর্ণ। যে কোন সময় ব্যান্ড হতে পারে আপনার একাউন্ট। এমন অবস্থা হলে সাইট সাময়িকভাবে বন্ধ রেখে কয়েকদিন পরে পুনরায় এ্যাকটিভ করুন।
 
১০. আইপি পরিবর্তন করে নিজের এ্যাডে নিজে কখনই ক্লিক করবেন না।

আরো নতুন নতুন টিপস পেতে সাথেই থাকুন। 

Post a Comment

0 Comments