সব দেশে একসাথে কেন রোজা ও ঈদ হয়না জেনে নিন ২০২০ টিপসনিউজবিডি

 সব দেশে একসাথে কেন রোজা ও ঈদ হয়না জেনে নিন ২০২০ টিপসনিউজবিডি



রোজা শুরু করেছিলাম বাংলাদেশের সাথে কিন্তু ঈদ করতেছি সৌদি আরবের সাথে।কি কারনে চাদের কম বেশি হয়ে যাচ্ছে?

গতবছর রোজা শুরু করেছিলাম সৌদি আরবের সাথে কিন্তু ঈদ করেছিলাম বাংলাদেশের সাথে। আর এইবার রোজা শুরু করেছিলাম বাংলাদেশের সাথে কিন্তু ঈদ করতেছি সৌদি আরবের সাথে। এই রকম কিন্তু প্রায় সময় হয়ে থাকে। 

আমার প্রশ্ন হচ্ছে কি কারনে কম বেশি হয়?  চাদের কম বেশি হয়ে যাচ্ছে? নাকি অন্য কিছুর জন্য। সব দেশে ঈদ একসাথে হয় না কেন? 

 চন্দ্রবর্ষ:

চাঁদের পৃথিবীর চারদিকে একবার ঘুরে আসতে সময় লাগে গড়ে প্রায় ২৯.৫৩ দিন। ফলশ্রুতিতে চন্দ্রমাস হয় ২৯ বা ৩০ সেকেন্ডের ও কম। মজার ব্যাপার হল, চন্দ্রমাস নির্দিষ্ট নয়। ফলে মুসলিমদেরকে রমজান ও ঈদ পালন করতে চাঁদ দেখতে হয়। এই অনির্দিষ্টতার কারণে চন্দ্রবছরও আলাদা হয়। কোন বছর ৩৫৪, আবার কোন বছরে ৩৫৫ দিন হয়। অর্থাৎ এটি গ্রেগরীয় বা সৌরবর্ষ থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন ও অনন্য। যদিও চন্দ্রবর্ষে সূর্য ডোবার পর নতুন দিন গণনা শুরু হয়। অর্থাৎ রাত আগে আসে, তারপর দিন এইভাবে চলে। 

সময়ের বিশাল তারতম্য:

শুরুতে যে প্রশ্নটা ছিল সেটাই আলোচনা করি। হিসেব অনুযায়ী সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশ ৩ ঘণ্টা এগিয়ে। এতে বরং বাংলাদেশ ৩ ঘণ্টা আগে চাঁদ দেখবে। কিন্তু তা তো হয়ই না, উল্টো সৌদি আরবে একদিন আগে রমজান, ঈদ শুরু হয়ে যায় সাধারণত প্রায় সময় দেখছি ।

আমরা সৌর ও চন্দ্রের হিসেবকে মিলিয়ে ফেলি। সৌর হিসেবে সৌদি আরবের সাথে আমাদের পার্থক্য মাত্র ৩ ঘণ্টা হলেও চন্দ্রের হিসেবে সৌদি আরব ও আমাদের পার্থক্য ২১ ঘণ্টার! 
কি অবাক হচ্ছেন? অবাক হওয়ারই কথা। 
এটা কিভাবে হল, বুঝতে পারছেন না নিশ্চয়ই? চলুন জেনে নিই বিষয়টা।


কেন এক দেশে চাঁদ দেখা গেলেও অন্য দেশে দেখা যেতে দেরি হতে পারে। কেননা খালি চোখে চাঁদকে দেখতে হলে চন্দ্র আর সূর্যের মাঝে ১০.৫ ডিগ্রি কোণ থাকতেই হবে। যে পরিমাণ দূরত্ব অর্জন করলে এই কোণ তৈরি হবে, সে পরিমাণ যেতে যেতে চাঁদের ১৭ থেকে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত লেগে যায়। এ কারণেই আজ আমেরিকাতে চাঁদ দেখে গেলেই যে বাংলাদেশেও দেখা যাবে। সেটা ভুল ধারণা। যতক্ষণ না পর্যন্ত সেই কোণ অর্থাৎ ১০.৫ ডিগ্রি অর্জন না হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত দেখা যাবে না। 

একই বিষয় সৌদি আরব ও বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও। এই সংকট কোণকে ইলঙ্গেশন বলে। তাই চাঁদের বয়স কত সেটা আদৌ আসল কথা নয়, সেই কোণ হয়েছে কিনা সেটার উপর নির্ভর করে চাঁদ দেখা যাবে কিনা।

সৌদি আরব থেকে ৩ ঘণ্টা সূর্যের হিসেবে এগিয়ে থাকলেও, চাঁদের হিসেবে ২১ (২৪-৩=২১) ঘণ্টা পিছিয়ে আছি। ২১ ঘণ্টা প্রায় ১ দিন। অর্থাৎ আমরা প্রায় একদিন পিছিয়ে আছি। সেজন্যই সৌর বছরের হিসেবে একদিন পরে চাঁদ দেখি। 

তবে চন্দ্র বছরের কথা বললে আমরা সবাই একই দিনেই সব করি। তাই কারো ভাবার কিছু নেই যে সবাই ভিন্ন দিনে রমজান বা ঈদ পালন করে। সবাই একই দিনেই পালন করে।

শেষ কথা হল, চন্দ্রবর্ষ অনুযায়ী পুরো পৃথিবীর সকলেই একই দিনে রমজান, ঈদ পালন করে। শুধু টাইমজোন (Timezone) আলাদা বলে এমনটা মনে হয়।

সবাই ভালো থাকবেন, আরো নতুন নতুন টিপস পেতে সাথেই থাকুন। 

ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। 

Post a Comment

0 Comments