কন্টেন্ট রাইটার কি ও কিভাবে কন্টেন্ট লিখবেন - কিভাবে ভালো মানের পোস্ট করবেন আপনার সাইটে

 কন্টেন্ট রাইটার কি ও কিভাবে কন্টেন্ট লিখবেন - 

কিভাবে ভালো মানের পোস্ট করবেন আপনার সাইটে 

how to write content
Content Writer What-how to write content

ভাল কনটেন্ট রাইটিং কি?

নিস মারকেটিং বলেন আর যাই বলেন, অনলাইন প্লাটফর্মে যেকোনো রকম ব্যবসা করতে গেলে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো কনটেন্ট। আর আমাদের মত নিস মার্কেটারদের জন্য তা হল লিখিত কনটেন্ট।

এখন প্রশ্ন হলো, ভাল কনটেন্ট রাইটিং চিনবেন কিভাবে?

আমাদের মধ্যে অনেকেই হয়তো নিজের ওয়েবসাইটের জন্য নিজেই লিখি। অনেকে আবার অন্য কাউকে দিয়ে লিখাই। কিন্তু দুই ক্ষেত্রেই ভাল কনটেন্ট রাইটিং জিনিসটা কি তা বুঝা দরকার। এর কারণ নিশ্চয়ই আর বাড়িয়ে বলা দরকার নাই।

আমি আজকে প্রায় তিন বছর ধরে কনটেন্ট রাইটিং করি। এখন নিজের একটি রাইটিং কোম্পানিও আছে। এই কয়েক বছরে বিভিন্ন উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে অনেক কিছুই শিখেছি। তার মধ্যে কয়েকটা জিনিস আপনাদের সাথে শেয়ার করি। হয়তো আপনাদের কাজে আসবে। বিশেষ করে নতুন মার্কেটারদের।

কিভাবে ভালো মানের পোস্ট করবেন আপনার সাইটে

আপনার নিজের কিছুটা হলেও ভালো ইংরেজি পারতে হবে। অবশ্য এখন অনেক রকম গ্রামার চেকিং টুলস পাওয়া যায় যেগুলো বুঝায় আপনাকে যে তারা আপনার ২ টাকার রাইটিংকে ২০০০ টাকার রাইটিং এ পরিণত করে দিবে। এর থেকে বড় মিথ্যা আর নাই।

গ্রামার চেকিং টুলস শুধু আপনার রাইটিংকে আরো বেশি শুদ্ধ করার কাজে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সত্য কথা বলতে তারা খারাপ রাইটিংকে ভালো করে দিতে পারবে না। তাই নিজে রাইটিং করুন অথবা আরেকজনকে দিয়ে লিখান, আপনার ভালো রাইটিং কি তা সম্পর্কে একটি ধারণা থাকা উচিত।

এ জন্য কি করতে পারেন?


ভালো রাইটিং কি তা শিখতে হলে ইংরেজিতে মেজর করা লাগেনা। শুধু অল্প একটু ইংরেজি জানলেই হয়। এবং তার পাশাপাশি ভালো ভালো ব্লগ পড়তে হবে। এভাবে আপনি ভালো রাইটিং এর একটি প্যাটার্ন সম্পর্কে জানতে পারবেন। সবথেকে ভালো হয় যদি আপনি আপনার শখের কোন বিষয় নিয়ে বিভিন্ন আর্টিকেল পড়েন।

এবার রাইটিং নিয়ে একটু কথা বলি।


আমি আমার ক্যারিয়ারে বিভিন্নভাবে আর্টিকেল লিখেছি। কিন্তু একটি বিশেষ মেথড ব্যবহার করে আমি দেখেছি যে আমার রিডাররা বেশিক্ষণ আমার নিজের ওয়েব সাইটগুলোতে সময় অতিবাহিত করে।

আর্টিকেলের একদম শুরুতে ইন্ট্রোডাকশনে উচিত একটি সমস্যা নিয়ে কথা বলা। সাধারণত একজন ইউজার কোন সমস্যা অথবা কোন কৌতুহল এর কারণে গুগলে সার্চ দেয়।

তো আপনি যদি ঠিকভাবে তার কৌতুহল অথবা সমস্যার কারণ নিয়ে আর্টিকেল এর শুরুতে কথা বলেন তাহলে ইউজার ইন্সট্যান্টলি আপনার আর্টিকেলের সাথে একটি কানেকশন তৈরি করতে পারবে। এবং সে পুরো আর্টিকেলটি পড়ার জন্য একটি কারণ পাবে।

তাই আর্টিকেলে শুরুতেই সবথেকে সম্ভাব্য যে সমস্যার কারণে ইউজার হয়তো আপনার ওয়েবসাইটে এসেছে তা নিয়ে কথা বলুন।

ইন্ট্রোডাকশনে ইউজারের জন্য একটি শর্টকাট সলিউশন থাকা উচিত। এবং সলিউশনটি এমনভাবে উপস্থাপন করা উচিত যাতে ইউজার এই ইন্ট্রো পড়ে তার সমস্যার সমাধান পায়। কিন্তু এটা এমন হবেনা যে এই শর্টকাট সলিউশন ইউজার এর কৌতুহল সম্পূর্ণভাবে পূরণ করে।



এটা একটু চিন্তা করে করা লাগে। কিন্তু ভিজিটর এর অ্যাটেনশন ধরে রাখতে খুবই উপযোগী একটি মেথড। আমি সাধারণত এই শর্টকাট সলিউশন এর জন্য ইন্ট্রোতে একটি আলাদা প্যারাগ্রাফ রাখি।

সবার শেষে আপনাকে একটি আলাদা প্যারাগ্রাফ রাখতে হবে যেখানে আপনি আপনার পুরো আর্টিকেলে কি কি নিয়ে কথা বলবেন এবং কেন তার পুরো আর্টিকেলটি পড়া উচিত তা ভিজিটরকে জানাবেন।এইতো গেল ইন্ট্রো।

এবার আর্টিকেলের মূল অংশ নিয়ে কথা বলা যাক।


আর্টিকেলে ইন্ট্রো এর পর সবার প্রথম সাব হেডিং এ আপনার টাইটেল এর মূল বিষয় নিয়ে কথা বলা উচিত। আর্টিকেল এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ টপিক গুলি থাকবে আর্টিকেলের উপরের দিকে। এবং একটু কম গুরুত্বপূর্ণ টপিক গুলি থাকবে নিচের দিকে।

এভাবে আপনি ভিজিটরের অ্যাটেনশন ধরে রাখতে পারবেন এবং আপনার পেজের বাউন্স রেট কম থাকবে।

একটা ভালো প্র্যাক্টিস হলো আর্টিকেলের ইন্ট্রো এরপর প্রথম যে সাব হেডিং সেখানে আপনার মেইন কি ওয়ার্ডটা থাকা। এটা সব সময় সম্ভব না এবং সম্ভব না হলে দয়া করে জোর করে ঢুকাবেন না। কিন্তু যদি সম্ভব হয় তাহলে অবশ্যই ব্যবহার করবেন।

এটা গুগলকে আপনার কনটেন্ট এর বৈশিষ্ট্য নিয়ে ভালো সিগনাল দেয় এবং আপনার রিডারও প্রথমেই তার প্রয়োজনীও ইনফর্মেশন পেয়ে খুশি হয়।

কনক্লিউশন নিয়ে আসলে তেমন কিছু বলার নেই।


কনক্লিউশন সবসময় ছোট রাখবেন এবং আপনার পুরো আর্টিকেল এর একটি সারাংশ এখানে রাখবেন। আপনার ভিজিটর কি কি শিখেছে এ আরটিকেল পড়ে তা একটু মনে করিয়ে দিবেন।
এবং আপনার ওয়েবসাইটে যদি কমেন্ট সেকশন থাকে তাহলে আপনার ভিজিটরকে তাদের মতামত কমেন্ট করার জন্য বলবেন।

নতুন ভিজিটররা যদি দেখে আপনার আর্টিকেলটির কিছু কমেন্ট রয়েছে তাহলে তারা আরও বেশি পড়ার ইন্টারেস্ট পাবে।


আরো নতুন নতুন সিম অফার, টিপস ও নিউজ পেতে সাথেই থাকুন। ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে সাইট শেয়ার করুন ।

Post a Comment

1 Comments