Home remedies to reduce fever Health Tips 2020

জ্বর কমানোর ঘরোয়া চিকিৎসা


আমরা মনে করি আজ জ্বর একটি রোগ। কিন্তু এটি সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। জ্বর হচ্ছে কোন রোগের পূর্ববর্তী উপসর্গ।  আজকের জ্বর কমানোর ঘরোয়া চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা করব।

মানুষের শরীরে সাধারনত তাপমাত্রা থাকে 98 ডিগ্রি ফারেনহাইট। কিন্তু যখন জ্বরের প্রভাব পড়ে তখন তা বেড়ে 100 ডিগ্রী ফারেনহাইট অতিক্রম করে ফেলে। শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। যখন শরীরের তাপমাত্রা 103 ডিগ্রি এর কাছাকাছি আসে তখন মাজহারী জ্বর হিসেবে ধরা হয়। তার বেশি অতিক্রম করলে তাকে উচ্চ জ্বর বলা হয়। তখন অবশ্যই সাবধানতার সাথে থাকতে হবে।

জ্বর শুধু আমাদের জন্য ক্ষতি তা নয়। এটি অনেক সময় আমাদের উপকার হয়ে দাঁড়ায়। অনেক সময় জ্বর শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এর মাধ্যম হয়। শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে তখন। আর এসময় ককটেলটি ভাইরাল তৈরি করতে থাকে। 

Home remedies to reduce fever Health Tips 2020
Home remedies to reduce fever Health Tips 2020



যেসব কারণে জ্বর আসে:

*দীর্ঘদিন যাবত কোন এন্টিবায়োটিক নিচে থাকলে জ্বর হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
*কোন স্বল্প সময়ের মধ্যে যেকোনো ধরণের অপারেশন থেকে বের হয়ে আসলে।
* মানসিক আঘাত এবং দীর্ঘ গভীর চিন্তায় থাকলে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসার সম্ভাবনা থাকে।

জ্বর হলে যা করা উচিত:

1. হঠাৎ করে ওষুধ খাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। নিজের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কখনো ওষুধ খাওয়া যাবে না।

2. জ্বরের অন্যতম প্রধান চিকিৎসা হচ্ছে তরল জাতীয় খাবার খাওয়া। বাসায় থাকলে তা অনায়াসে খাওয়া যায়। আর যদি অফিসে থাকেন তাহলে বেশি বেশি করে পানি খান বিরতি  দিয়ে।

3. যতটা সম্ভব গরম স্যুপ খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। সঙ্গে আধা চা খেলে তা আরো ভালো উপকার দেয়। এতে মাথা ব্যথা ও গলা ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

4. রোগীকে সারা শরীর স্পঞ্জ করে দিতে হবে। অর্থাৎ সারা শরীরে ভিজে কাপড় দিয়ে মুছে দিতে হবে বারবার।

5. ঠান্ডার প্রকোপ থাকতে বুকে কফ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই সাবধানতার সাথে স্পঞ্জিং করতে হবে। অথবা হালকা ভলিয়মে ফ্যান চালানো যেতে পারে।

6. আরে সময় সারাক্ষণ শুয়ে থাকা যাবে না। এতে করে এর পরিমাণ টা বেড়ে যায়। যতটা সম্ভব হাঁটাহাঁটি করাটাই উত্তম। এতে গাম এসএমএস করাটা অনেকটা কমে যাবে।

7. প্যারাসিটামল ওষুধ খেতে পারেন। তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ খাওয়ায় শ্রেষ্ঠ।

8. গরম পানির সাথে লেবুর রস ও আদা কুচি করে কেটে গেলে অনেকটা সুফল পাওয়া যায়। কেননা এর ফলে শরীরে ব্যাকটেরিয়াজনিত সকল সমস্যা দূর হয় আর সাথে জ্বর কমে যায়।

9. জ্বর আসলে হালকা গলা ব্যথা শুরু হয়। এর জন্য তুলসী পাতা পান এবং কয়েকটি জিরা গরম করে খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। এতেও গলা ব্যথায় উপকার হবে।

10.যদি আপনি অফিসে থাকেন তাহলে মাঝে মাঝে একটু করে চা খাওয়ার চেষ্টা করুন। আর যতটা সম্ভব চোখে মুখে পানি দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে আনার চেষ্টা করতে হবে।

যতটা সম্ভব দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা বা ওষুধ খেতে হবে। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো রকম ধরনের ঔষধ না খাওয়াই সবচেয়ে ভালো। তবে উপরুক্ত টিপস গুলো ফলো করলে ঘরে বসে জ্বর জ্বর কমাতে সাহায্য করবে।


আরো নতুন নতুন সিম অফার, টিপস ও নিউজ পেতে সাথেই থাকুন।

ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে সাইট শেয়ার করুন ।


Tags: home remedies for fever,home remedies,health tips,home remedies to reduce fever,fever,fever home remedies,home remedies for fever in children,home remedies that help to cure fever,amazing home remedies to treat viral fever,how to treatment of viral fever at home remedies,how to reduce a fever naturally at home,how to reduce fever at home in tamil,how to reduce fever,how to reduce a fever without medication,how to reduce a high fever,fever treatment,13 best home remedies for fever

Post a Comment

0 Comments