জেনে নিন সুস্থ থাকার জন্য যেসব পুষ্টিকর খাবার খাওয়া উচিত

সুস্থ থাকার জন্য যেসব পুষ্টিকর খাবার খাওয়া উচিত


সুস্থ শরীরে সুস্থ মন থাকে। পৃথিবীতে এমন কেউ নেই, যে কিনা সুখী থাকতে চায় না। আর সুখী থাকতে হলে মন ও স্বাস্থ্য দুটি ভালো থাকতে হবে। কেননা সুস্থ থাকলেই ওই দেহে সুস্থ মন থাকে। 


সুস্থ থাকার জন্য যেসব পুষ্টিকর খাবার খাওয়া উচিত
সুস্থ থাকার জন্য যেসব পুষ্টিকর খাবার খাওয়া উচিত



আর এই সুস্থ থাকতে হলে নিয়মিত কিছু পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।।কিন্তু দুঃখ জনকভাবে দেখা যাচ্ছে আমরা অনিয়মিত খাদ্যাভাস এ আমাদের দেহের প্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণ হচ্ছে না। কিছু কিছু খাবার আছে যা আমাদের জন্য খুবই প্রয়োজন কিন্তু আমরা সেগুলো খেতে চাই না। আবার কিছু কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো আমরা পছন্দ করি তাই বার বার খেয়ে থাকি। যার ফলে আমাদের খাবার রুটিন এর অনেক তারতম্য হয়ে যায়।

ফলে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। তাই আজ আপনাদেরকে জানানো হবে, যেসব খাবার খেলে শরীর সুস্থ থাকে সেসব খাবার সম্পর্কে।


1. সোডিয়াম

সোডিয়াম হচ্ছে একটি খনিজ পুষ্টি উপাদান যুক্ত খাবার। এই উপাদানটি রক্তচাপের মাত্রা কে নিয়ন্ত্রণ করে। এর পাশাপাশি শরীরের নানা ধরনের তরল পদার্থের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে।। কিন্তু এস সোডিয়ামের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।  আবার বেশি মাত্রায় সোডিয়াম খেলে শরীরের ক্ষতি হয়ে যায়। আচার, লবণাক্ত, বাদাম, ঘোল, তরমুজ, লবণ ইত্যাদিতে সোডিয়াম পাওয়া যায়।

2. পটাশিয়াম

ইলেক্ট্রোলাইট এর অপর নাম হচ্ছে পটাশিয়াম। ই উপাদানটি 43 করতে সহায়তা করে এবং কার্বহাইড্রেটস কে ভেঙে ফেলার কাজ করে। এছাড়া এটি হৃৎপিণ্ডকে সচল করে রাখে। টমেটো, লাল মাংস, কমলা, আলু এবং মুরগিতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে।

3. ফসফরাস

উপাদানটি হজম প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করে। তাছাড়া হরমোন ভারসাম্য বজায় এবং হাড়কে শক্ত করতে সাহায্য করে। ডাল, ব্রকলি, চিয়া বীজ এবং সিমে প্রচুর পরিমাণে ফসফরাস আছে।

4. জিংক

জিংক সর্দি ঠান্ডা জ্বর এবং ইনফেকশন এর প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। আর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে তুলে। প্রজনন ক্ষমতা কয়েক গুণ বাড়িয়ে তোলে। মুরগি, ওটমিল, দই, ছোলা, হিজলি বাদাম, সবুজ মটরশুটি ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে জিংক পাওয়া যায়।

5. ম্যাগনেসিয়াম

ম্যাগনেসিয়াম মানবদেহের জন্য অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি খনিজ উপাদান। শরীরে হৃদপিন্ড ভালো রাখার জন্য আমি ম্যাগনেসিয়াম এর বিকল্প কোনো কিছু নেই। এছাড়া গ্লুকোজের বিপাকীয় কাজে এটি সহায়তা করে থাকে। শরীরে ম্যাগনেসিয়ামের যদি ঘাটতি হয় তাহলে উচ্চরক্তচাপ দেখা যায় এবং দেহের ইনসুলিন এর ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে। ডার্ক চকলেট, কাজুবাদাম, শ্বেত বীজ, হিজলি বাদামে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে।

6. আয়রন

মানবদেহের রক্তের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হচ্ছে হিমোগ্লোবিন। আর এই হিমোগ্লোবিনের কাজে সহায়তা করে থাকে আয়রন। শরীরের পরিমাণ কম থাকে তাহলে রক্তস্বল্পতার ব্যাপক ঘাটতি দেখা যায়। নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে। কুমড়ো বীজ, কিসমিস, কচু, ডাল এবং সিম বীজে প্রচুর পরিমাণে থাকে।

7. আয়োডিন

শরীরে হরমোন উৎপাদনের জন্য আয়োজন এর গুরুত্ব অপরিসীম। এছাড়া যদি আয়োডিনের ঘাটতি দেখা যায় তাহলে ক্লান্তি, অবসাদ এবং উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরল হয়। লবণ, চিংড়ি, সেদ্ধ ডিম, দেদার পানি, পনির এবং শুকনো আলু বোখরা তে প্রচুর পরিমাণে আয়োডিন থাকে।

উপরের খাবারগুলো নিয়মিত খেলে শরীর সুস্থ থাকবে। শরীর সুস্থ থাকার জন্য নিয়মিত রুটিনমাফিক খাবার খাওয়া দরকার। 


আরো নতুন নতুন সিম অফার, টিপস ও নিউজ পেতে সাথেই থাকুন।
ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে সাইট শেয়ার করুন ।


Post a Comment

0 Comments