Top 5 telugu thriller movies ২০২১ সালের সেরা তেলুগু থ্রিলার মুভির রিভিউ।

 আসসালামু আলাইকুম ।আশা করি সবাই ভালো আছেন।আমিও ভালো আছি।

আজকে আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি ৫ টি সেরা থ্রিলার তেলেগু মুভির রিভিউ সাথে ইউটিউব লিংক।তো চলুন শুরু করা যাক।



1. V (2020)

এই মুভিটা আসলে একটা ধাঁধা , যেটা ভি মুভিতে এক সাইকো কিলার পরবর্তী খুন করার আগে পুলিশের জন্য ক্লু হিসেবে রেখে যায় । এক্সাইটিং মনে হচ্ছে না ? সাইকো টাইপ একশন থ্রিলার যাদের পছন্দ তাদের জন্য মাস্টওয়াচ মুভিটি । তবে পুরাপুরি কোরিয়ান টাইপ থ্রিলার মুভি বলা যাবে না , কারন এতে আপনি হালকা ড্রামা রোমান্সের ফিল ও পাবেন । সব মিলিয়ে দেখার মতো একটা মুভি ।

ডিসিপি আদিত্য (সুধির বাবু) দাঙ্গা সহ বেশ কিছু সাহসী সফল অভিযানের পর লাইমটাইটে চলে আসেন। সরকারি অনেকগুলো পুরষ্কার ও ঝুলিতে ভরেন । সব জায়গায় যখন তার সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে তখনই এক অজ্ঞাত সাইকোর হাতে খুন হন তারই সহকর্মী ইনস্পেক্টর প্রসাদ । যেন তেন খুন নয় , ঠান্ডা মাথার খুন । ধারালো ছুরি দিয়ে শরীরের সব রক্ত বের করে খুন করে এই সাইকো । ইন্টারেস্টিং জিনিস হচ্ছে খুনি একটি ছোট চিরকুটে ডিসিপি আদিত্য কে চ্যালেঞ্জ করে এর রহস্য উদঘাটনের । সাইকো কিলার এও বলে যে সে আরো চারটি খুন করতে যাচ্ছে । নড়েচড়ে বসে পুরো পুলিশ প্রশাসন । তারা তৈরি হতে হতে আরেক খুন করে ফেলে সাইকো কিলার । এবার হত্যা করে বিজনেস টাইকুন মল্লিকার্জুন কে । এবার খুন করে মুখের ভিতর চিরকুটে এক ধাঁধা লিখে যায় খুনি , যার মধ্যে পরবর্তী খুনের ক্লু আছে । ডিসিপি আদিত্য কি পারবে পরবর্তী খুন করা থেকে এই সাইকো কে থামাতে ? আর এই খুনের রহস্যই বা কি ? জানতে হলে মুভির একদম শেষ পর্যন্ত দেখতে হবে। মুভি যতই শেষ দিকে আগাবে অনেক নতুন ঘটনা বেরিয়ে আসবে । সেই সাথে উন্মোচন হবে সকল রহস্যের । চোখ সরাতে পারবেন না একদম ।


2.Evaru (2019)

এক বিরাট বড় ব্যাবসায়ীর স্ত্রী সমীরাকে পুলিশ গ্রেফতার করে একজন পুলিশ অফিসারের হত্যার ঘটনায়।সমীরা জানায় ওই পুলিশ অফিসার তার যৌন নিগ্রহের চেষ্টা করায় সে আত্মরক্ষার্থে এই কাজ করেছে!জামিনে মুক্তি পাওয়ার পরে সমীরার ডিফেন্স ল-ইয়ার নিজেদের স্বপক্ষে আরও প্রমাণ যোগাড়ের উদ্দেশ্যে ডেকে পাঠায় এক ঘুষখোর সাব ইন্সপেক্টর বিক্রম বাসুদেবকে।তারপর কোথাকার জল কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় আর কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে কি বেরোয়...কেউটে নাকি অ্যানাকোন্ডা সেটাই এই গল্পের মূল আকর্ষণ!

ক্যামেরার আউটডোরের অল্প কাজ যা আছে তা দৃষ্টিনন্দন ভঙ্গিতে কুন্নুরের সৌন্দর্য্য প্রদর্শন করেছে।আবহসঙ্গীত বেশ ভাল।

অভিনয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত সাব ইন্সপেক্টর বিক্রমের চরিত্রে আদিভি শেষ দারুণ অভিনয় করেছেন।Smart & dashing looks এর পাশাপাশি transformation of character দুর্ধর্ষভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি।সমীরা'র চরিত্রে রেজিনা ক্যাসান্ড্রা বিশ্বাসযোগ্যভাবে অসাধারণ অভিনয় করেছেন।ঠিকঠাক বিচারে তিনিই হয়ত এই ছবির সবচেয়ে ভাল অভিনয় পেশ করেছেন আমার মতে।আরেকটি পার্শ্ব চরিত্রে নবীন চন্দ্রাও খুব ভাল।বলিউডের মুরলী শর্মা রয়েছেন একটি ছোট্ট ক্যামিও রোলে।

একদিক দিয়ে এটাকে বেস্ট থ্রিলার মুভি বলা যায়।কেন বললাম?তা দেখলেই বুঝবেন।



3. Agent Sai (2019)

একজন ডিটেক্টিভ ছোট খাটো কাজ পাচ্ছিলেন হঠাত করেই একটা "রেপ এন্ড মার্ডার" কেস পেয়ে গেলো তাও জেলখানায় বসে। কেসের ইনভেস্টিগেশনে যেই দুই জন সাস্পেক্ট ছিল তার ২জন খুন হলো এবং সেই খুনের দায় এসে পরলো ডিটেক্টিভ এর ওপরে। প্রতিদিন রেলওয়ের পাশে পাওয়া যাচ্ছে বেওয়ারিশ লাশ। দেখে মনে হচ্ছে জঘন্য ভাবে হত্যা কিন্তু পোস্টমর্টেম রিপোর্ট বলছে ন্যাচারাল ডেথ।
আসলে হচ্ছে কি? বেওয়ারিশ লাশ গুলো কারা। ন্যাচারাল ডেথ হলে এমন ব্রুটাল মার্ডার লাগবে কেনো? এদের রেলওয়ের পাশেই কেনো পাওয়া যাচ্ছে? এর পিছনে কি একজন নাকি একটি চক্র?
জানতে হলে অবশ্যই দেখতে হবে এই থ্রিলারটি।



4. Goodachari (2018)

অসাধারণ টুইস্ট আর একশনে ভরপুর goodachari মুভি তার সাথে bgm গুলোও ছিল একদম👌👌👌।যাই হোক মূল কাহিনীতে আসি
জাতীয় সুরক্ষা সংস্থায় কর্মরত অর্জুনের (আদিভি শেশ) বাবা একজন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হাতে মারা গিয়েছিলেন। বাবাকে অনুপ্রেরণা হিসাবে গ্রহণ করে অর্জুনও অনেক চেষ্টার পরে এজেন্সিতে যোগ দেন। তার প্রশিক্ষণ শেষ করার পরে অর্জুনকে একটি মিশন অর্পণ করা হয়েছে। তবে এর আগেও তিনি এই সংস্থাটিতে নামার আগেই অর্জুনকে নিজের এজেন্সি কর্তাদের হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এই সময়টি যখন অর্জুন জানতে পেরেছিল যে তার মিশনটি যা ভেবেছিল তার চেয়েও বড় এবং এর সাথে তার ব্যক্তিগত যোগাযোগ রয়েছে। সেই মোচড়টি কী এবং কীভাবে তিনি মিশনটি সমাধান করেন তা হ'ল ছবির পুরো গল্প।
মুভির শেষে একটা বড়সড় টুইস্ট আছে যেটা অবাক করার মত। আশা সবার কাছেই ভালো লাগবে। সুযোগ পেলে দেখে নিবেন।



5.Hit (2020)

পুলিস অফিসার বিক্রম।সে তার ডিপার্টমেন্ট এ অনেক ভালো অফিসার।সবার থেকে এগিয়ে।তার কিছু খারাপ অতিত এর কারনে। এখন তার ব্রেইন এ সমস্যা করছে।তাই ডাক্তার বলেছে ৬মাস চাকরি ছেরে রেস্ট নিতে।কিন্তু সে তার চাকরি ছারবে না।শেষ মেষ তার প্রেমিকার কথা শুনে ছুটিতে যাই।যাওয়ার কিছুদিন পর যানতে পারে যে তার প্রেমিকা গায়েব হয়ে গেছে।কেও কিডনাপ করে ফেলেছে।পরে সে কেইস টা নিতে চায় কিন্তু আরেকজন এই কেইস টা নিয়ে নিয়েছে।যে তাকে কেইস টা কোনো ভাবেই দিবে নাহ।পরে সে দেখে আরেক টা কেইস।যেটার সাথে এই কেইস এর সম্পর্ক রয়েছে।এবং এই মেয়ে টি ও মাত্র ১০ দিন আগে ই কিডনাপ হয়েছে।তাই সে ওই কেইস টা নেই।এবং তার প্রেমিকা কে খুঝতে থাকে।এবং এই মেয়েটার লাশ পায়।এখন সে কি পারবে তার প্রেমিকা কি জীবিত উদ্ধার করতে।এটা জানতে দেখতে হবে Hit। শেষের টুইস্ট টা সত্যি ই অস্থির ছিলো।



তো আজকে এই পর্যন্তই।সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।আল্লাহ হাফেজ।



Post a Comment

0 Comments